1. admin@dainikjamunaexpress.com : admin :
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বেলকুচিতে শিশু সন্তানসহ পৌর মেয়র উপর হামলার এমপির এপিএসসহ ৬০জনের বিরুদ্ধে মামলা কাজিপুরে শিক্ষকের হাতে ধর্ষিত প্রতিবেশী নারী কুষ্টিয়ায় আনসার নিয়োগ ডিউটিতে কোটি টাকার বাণিজ্য সিরাজগঞ্জে কাভার্ডভ্যান ভর্তি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারীকে আটক করেছে র‌্যাব বেলকুচিতে সাংবাদিকের উপর হামলা,মুঠোফোন ছিনিয়ে নিয়ে যায় সংবাদ প্রকাশ করলে প্রাণনাশের হুমকি সিরাজগঞ্জে প্রতি নিয়ত মানবতার দৃষ্টি স্থাপন করছেন পুলিশ সদস্য শামীম রেজা বেলকুচিতে পৌর মেয়রের ওপর হামলা শিশু, সংবাদকর্মীসহ আহত ৫ সিরাজগঞ্জে ভিক্টোরিয়া হাইস্কুলে শিক্ষার্থীদের নিয়ে মাদকবিরোধী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত দুস্থ মহিলা ও শিশু কল্যাণ বোর্ডের সদস্য হলেন সাবেক এমপি সেলিনা বেগম স্বপ্না জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা সিরাজগঞ্জ জেলা শাখার অভিষেক অনুষ্ঠিত

আজ কাজিপুর মুক্ত দিবস

  • প্রকাশিত : রবিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ৭৬ বার পড়া হয়েছে
কবির মাহমুদ (কাজিপুর,সিরাজগঞ্জ) সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলা হানাদার মুক্ত দিবস আজ।১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর স্হানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্যে দিয়ে পাক হানাদার মুক্ত হয় কাজিপুর।
স্থানীয়  ও স্বাধীনতা যুদ্ধ ফেরত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সূত্রে জানা যায়,  মহান মুক্তিযুদ্ধে কাজিপুর উপজেলার বেশ কয়েকটি গ্রামে পাকহানাদার বাহিনীর সাথে মুক্তিযোদ্ধারা সম্মুখ যুদ্ধ করে।
তন্মধ্যে ২রা ডিসেম্বর বরইতলার যুদ্ধ ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ ও স্মরণীয়।  এই যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের গুলিতে হানাদার বাহিনীর ৩ জন সদস্য আহত হলে তারা ক্ষুদ্ধ হয়ে ব্যাপক গুলিবর্ষণ শুরু করে। বরইতলায় মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পের কথা জানতে পেরে পাকহানাদার বাহিনী গ্রমাটি জ্বালিয়ে দেয়।  শুধু গ্রাম জ্বালিয়ে নিশ্চুপ হয়নি পাক হানাদাররা,শুরু করে   নারকীয় হত্যাযজ্ঞ। মুক্তিযোদ্ধা সহ নিরীহ সাধারন মানুষের উপর তারা হামলা চালায়।  মসজিদে ইত্তেকাফরত ৩০ জন মুসল্লীকে হাত পেয়ে রশি  বেঁধে এনে গ্রামের উত্তর পার্শ্বে সারিবদ্ধ   করে ব্রাশ ফায়ারে হত্যা করে।
সকাল থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত অবিরাম যুদ্ধ চলে। এতে প্রায় দু’হাজার গ্রামবাসী আহত ও ১০৪ জন নিহত হয়। এর মধ্যে ৭৬ জনের নাম স্মৃতি সৌধ ফলকে রেকর্ড করা হয়েছে এবং অজ্ঞাত রয়েছে ২৮ জনের নাম। এ যুদ্ধে পাকহানাদার বাহিনীর ৬ সেনা এবং বাবু নামে এক স্থানীয় রাজাকার নিহত হয়।  মুক্তিযোদ্ধাদের প্রবল প্রতিরোধের মুখে হানাদার বাহিনী তাদের  ৬ সেনার লাশ রেখে কাজিপুর থানায় আশ্রয় নেয়। অবস্থা বেগতিক বুঝে ৭১ এর ৩রা ডিসেম্বর  ভোরের সূর্য না উঠতেই কাজিপুর ছাড়তে বাধ্য হয়। এভাবেই  শত্রুমুক্ত হয় কাজিপুর।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
এই নিউজ পোর্টালের কোন ছবি বা তথ্য বিনা অনুমতিতে হস্তান্তর নিষেধ। সর্বস্বত্ত্ব www.jamunaexpress.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Theme Customized By BreakingNews